Green Energy Foundation of Bangladesh (GEFB)

সৌরশক্তিতে সেচ পাম্প চালানোর সুপারিশ

দেশের বিভিন্ন স্থানে ডিজেলচালিত সেচপাম্পগুলোকে সৌরশক্তিতে পরিচালনার জন্য প্রতিস্থাপনের একটি প্রস্তাব সরকারের কাছে পেশ করেছে বাংলাদেশ সোলার ও রিনিউয়েবল এনার্জি অ্যাসোসিয়েশন (বিএসআরইএ)।
সমিতির পক্ষ থেকে সমিতির ভাইস চেয়ারম্যান মনওয়ার মেসবাহ মঈন সম্প্রতি আলাদাভাবে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ এবং কৃষি মন্ত্রণালয়ের কাছে ত্রুটিযুক্ত ও পরিবেশদূষণকারী ডিজেলচালিত সেচপাম্পগুলোকে সৌরশক্তি দ্বারা চালনার এ প্রস্তাব পেশ করেন। এতে বলা হয়, সৌরসেচব্যবস্থা চালু হলে আমদানি করা ডিজেলের ওপর কৃষকের নির্ভরতা কমে যাবে।

বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশনের তথ্যানুসারে বাংলাদেশে অগভীর নলকূপের সংখ্যা প্রায় সাড়ে ১৫ লাখ।
এর মধ্যে ৮৫ শতাংশ পাম্প ডিজেলচলিত। এ জন্য বছরে আনুমানিক ১১০ কোটি লিটারের বেশি ডিজেল ব্যবহৃত হয়। এতে সরকারকে প্রতিবছর প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি গুনতে হচ্ছে। বাকি ১৫ শতাংশ বিদ্যুৎ-চালিত পাম্প।
সমিতির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ২০০২ সালে প্রথম সোলার বা সৌরপাম্প স্থাপনের মাধ্যমে দেশে সৌরসেচ প্রযুক্তির সূচনা হয়। বিভিন্ন দাতা সংস্থা, সরকারি ও বেসরকারি সংস্থার উদ্যোগে এ পর্যন্ত ৩২০টির অধিক সৌরসেচপাম্প স্থাপন করা হয়েছে। রহিমআফরোজ রিনিউয়েবল এনার্জি লিমিটেড এককভাবে স্থাপন করেছে ২০০টির বেশি পাম্প।
বর্তমানে বিএডিসি ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আওতাধীন এলাকায় ২০ হাজারের বেশি অধিক ভাড়ায় চালিত সেচযন্ত্র কাজ করছে। বিএসআরইএ ডিজেলচালিত এক হাজার ৭২০টি লো-লিফট পাম্প ও ১৬ হাজার ৩২৯টি শ্যালো টিউবওয়েল প্রতিস্থাপন করার
প্রস্তাব করেছে। পাঁচ বছর মেয়াদি প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করতে খরচ হবে প্রায় পাঁচ হাজার কোটি টাকা।

তথ্য সুত্রঃ প্রথম আলো