এক হাজার একর জমিতে সোলার পাওয়ার প্ল্যান্ট-মিরসরাইয়ে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

  • by
নিজস্ব প্রতিনিধি, মিরসরাই
মিরসরাইয়ের অর্থনৈতিক অঞ্চলে এক হাজার একর জমিতে সোলার পাওয়ার প্ল্যান্ট নির্মাণ করা হবে। এর আগে আগামী এক বছরের মধ্যে দেড়শ মেগাওয়াটের একটি বিদ্যুৎ প্ল্যান্ট নির্মাণ করা হবে। অর্থনৈতিক অঞ্চলের জন্য নির্মাণ করা বিদ্যুৎ লাইন থেকে আশপাশের বিদ্যুৎবিহীন গ্রাম, পরিবারগুলোকে বিদ্যুতের আওতায় নিয়ে আসা হবে। ২০১৮ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে দেশের কোন পরিবার বিদ্যুৎবিহীন থাকবে না। গতকাল বৃহস্পতিবার মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চলের প্রশাসনিক ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স’াপন অনুষ্ঠান উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ এ কথা বলেন। এর আগে অর্থনৈতিক অঞ্চলের প্রশাসনিক ভবনের ভিত্তিপ্রস্তরের ফলক উন্মোচন করেন প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মূখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ।

চট্টগ্রামের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক দৌলতুজ্জামান খানের সভাপতিত্বে আলোচনা অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের চেয়ারম্যান মনোয়ার খান, ভূমি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মেছবাহ উল আলম, বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী, নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব আশোক মাধব রায়, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব নাজিম উদ্দিন, বিদ্যুৎ বিভাগ সচিব আহমদ কায়কাউস, পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব ইসতিয়াক আহমদ, সাপোর্ট টু ক্যাপাসিটি বিল্ডিং বেজা প্রকল্পের অতিরিক্ত সচিব হারুনুর রশিদ, আশ্রয়ন-২ প্রকল্প পরিচালক আবুল কালাম শামছুদ্দিন, মিরসরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জিয়া আহমদ সুমন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ইয়াছমিন আক্তার কাকলি, মিরসরাই পৌর সভার মেয়র গিয়াস উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ আতাউর রহমান, ইছাখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুল মোস্তফা বক্তব্য রাখেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করে দেশের উন্নয়নকে দ্রুত এগিয়ে নিতে কাজ করে যাচ্ছেন। সরকার দ্রুত মিরসরাইসহ দেশের অন্য অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোর বাস্তবায়ন দেখতে চায়। দেশের উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে হলে আগামী নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট দিতে হবে। নৌকায় ভোট না দিলে দেশের উন্নয়ন বন্ধ হয়ে যাবে। পরে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মূখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চলের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিদর্শন করেন।